সরিষার তেল
| |

সরিষার তেলের উপকারিতা ও অপকারিতা নিয়ে বিস্তারিত তথ্য

সরিষার তেল ভারতীয় সংস্কৃতি এবং ঐতিহ্যের একটি অত্যন্ত জনপ্রিয় অংশ। এটি কেবল রান্নাঘরে ব্যবহৃত হয় না। এটি সাধারণত প্রতিদিনের সৌন্দর্য ব্যবস্থার অংশ হিসেবে ব্যবহৃত হয়। সরিষার তেলের প্রচুর স্বাস্থ্য উপকারিতা রয়েছে। এটি আপনার সঞ্চালন উন্নতি করতে পারে এবং একটি শক্তিশালী উদ্দীপক হিসেবে কাজ করে যা আপনার পুরো শরীরকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। সরিষার তেল আপনার…

সরিষার তেল ভারতীয় সংস্কৃতি এবং ঐতিহ্যের একটি অত্যন্ত জনপ্রিয় অংশ। এটি কেবল রান্নাঘরে ব্যবহৃত হয় না। এটি সাধারণত প্রতিদিনের সৌন্দর্য ব্যবস্থার অংশ হিসেবে ব্যবহৃত হয়। সরিষার তেলের প্রচুর স্বাস্থ্য উপকারিতা রয়েছে। এটি আপনার সঞ্চালন উন্নতি করতে পারে এবং একটি শক্তিশালী উদ্দীপক হিসেবে কাজ করে যা আপনার পুরো শরীরকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। সরিষার তেল আপনার শরীরের বিভিন্ন সিস্টেম যেমন, পাচনতন্ত্র, শ্বাসযন্ত্র এবং এমনকি রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে উন্নত করতে পারে। সরিষার তেল আপনার পেশী বৃদ্ধি করতে সাহায্য করতে পারে। সরিষার তেল এরকম বিভিন্ন সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে পারে।

 

সরিষার তেল কি

সরিষার তেল সরিষা গাছের বীজ থেকে আসে। এর শক্তিশালী গন্ধ এবং উচ্চ ধোয়া বিন্দুর জন্য পরিচিত।  এটি ভারত-বাংলাদেশ, পাকিস্তানসহ বিশ্বের অনেক জায়গায় রান্নার জন্য ব্যবহৃত হয়। তাছাড়া সরিষার তেল মাসাজ তেল হিসেবে, ত্বকের সিরাম এবং চিকিৎসার জন্য ব্যবহৃত হয়।

যদি মনে প্রশ্ন জাগে সরিষার তেলে কি থাকে তহলে বলবো, সরিষার তেলে প্রয়োজনীয় সমস্ত পুষ্টি রয়েছে। ১০০ গ্রাম সরিষার তেলে প্রয়োজনীয় ৮৮৪ ক্যালোরি থাকে। সরিষার তেলে ওমেগা থ্রি এবং ওমেগা সিক্স ফ্যাটি এসিড এর সর্বোত্তম অনুপাত এবং সাচুরেটেড ফ্যাটের কম উপাদান সরিষার তেল কে আরো উপকারী করে তোলে। সরিষার তেল ডায়াবেটিসের জন্য ভালো। এর প্রদাহ বিরোধী বৈশিষ্ট্যের কারণে।

সুতরাং এটিকে আদর্শ তেলগুলোর মধ্যে একটি হিসেবে বিবেচনা করা হয়। তাছাড়া অতিরিক্ত কোলেস্টেরল এবং হাটের সমস্যা দূর করতে বিশেষজ্ঞ এবং ডায়েটিশিয়ানের পরামর্শ দিচ্ছেন সয়াবিন তেল এর পরিবর্তে রান্নায় সরিষার তেল ব্যবহার করার জন্য। এতে আমাদের স্বাস্থ্যঝুঁকির প্রবণতা কম হবে বলে মনে করা হয়।


সরিষার তেলের উপকারিতা

সরিষার তেলের অসংখ্য স্বাস্থ্য উপকারিতা রয়েছে। সরিষার তেল ব্যাকটেরিয়া এবং ছত্রাক এর বিরুদ্ধে লড়াই করে।এই সরিষার তেল  অভ্যন্তরীণ ও বাহ্যিক সংক্রমণে ব্যবহার করা যেতে পারে। নিচে সরিষার তেলের উপকারিতা দেয়া হল।সরিষার তেলের উপকারিতা জানতে এই টিপসগুলো ফলো করতে পারেন।

 

হজম স্বাস্থ্যের উন্নতি করে

এক চামচ সরিষার তেল প্রাকৃতিক উদ্দীপক হিসেবে কাজ করে। এটি পরিপাক রস নিঃসরণ সাহায্য করে এবং খাদ্য কার্যকর হজম করতে দেয়। তাছাড়া ইনসুলিন এবং পিত্ত নিঃসরণে সহায়তা করার ক্ষমতা চিনির পাশাপাশি লিপিড গুলোকে ভেঙে ফেলতে সাহায্য করে। এইভাবে পুষ্টি  ভারসাম্য বজায় রাখে।

 

ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমায়

সরিষার তেল উপস্থিত আলফা টেকোফেরলে ভিটামিন ই এর পরিমাণ ডায়াবেটিসের ঝুঁকি নিয়ন্ত্রণে উপকারী প্রভাব ফেলে। এজন্য প্রতিদিনের খাদ্য রান্নায় সরিষার তেলের ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে এতে ডায়াবেটিসের ঝুঁকি অনেক কম হয়।

 

ক্যান্সারের কোষের বৃদ্ধি ধীর হতে পারে

গবেষণায় পরামর্শ দেয় যে, সরিষার তেল আপনার শরীরের নির্দিষ্ট ধরনের ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধি এবং বিস্তার ধীর করতে সাহায্য করতে পারে। প্রতিদিনের খাবারে আপনি সরিষার তেল ব্যবহার করতে পারেন এতে ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা অনেক কম হয়।

 

সর্দি কাশি কম করে

প্রাচীনকাল থেকেই সর্দি কাশি, শ্বাসকষ্ট এবং এলার্জি প্রশমিত করতে সরিষার তেল ব্যবহার করা হয়। সরিষার তেল যুক্ত বাষ্প নিঃশ্বাস নিলে শ্বাসকষ্ট দূর হয়। সরিষার তেলের সাথে রসুন গরম করে বুকে মালিশ করলে সর্দি কাশি থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। সাইনোসাইটিস আক্রান্ত রোগীদের ক্ষেত্রে ইতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে।

 

হার্টের স্বাস্থ্য সমর্থন করতে পারে

সরিষার তেলের প্রচুর পরিমাণ মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড থাকে যা এক ধরনের অসম্পৃক্ত চর্বি।  মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিডগুলো বিভিন্ন সুবিধা সাথে যুক্ত। বিশেষত যখন হৃদ রোগের ক্ষেত্রে আসে। গবেষণায় দেখা গেছে, সরিষার তেল নিয়মিত ব্যবহারে হৃদরোগের ঝুঁকি অনেক কমে যায়।সরিষার তেল কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে পারে যা হাটের স্বাস্থ্য রক্ষা করতে সাহায্য করে।


জ্ঞানীয় ফাংশন বৃদ্ধি করে

একজনের দৈনন্দিন খাদ্য তালিকায় সরিষার তেল অন্তর্ভুক্ত করা উচিত। একজন ব্যক্তির মানসিক ক্ষমতা বৃদ্ধির সাথে যুক্ত। 1 চামচ সরিষার তেলের পরিমাণ ফ্যাটি অ্যাসিড যা প্রয়োজনীয় পুষ্টি ও ফাংশন বৃদ্ধি করতে সহায়তা করে এবং স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। এজন্য প্রতিদিন রান্নায় সরিষার তেল ব্যবহার করা উচিত এতে ব্রেনের বৃদ্ধির প্রসার ঘটবে।

 

জয়েন্টের ব্যথা এবং আর্থাইটিস থেকে মুক্তি

সরিষার তেল দিয়ে নিয়মিত মাসাজ করা জয়েন্ট এবং পেশীর ব্যথা উপশম করতে সাহায্য করে। বাতের রোগীরাও সরিষার তেল দিয়ে মাসাজ করার পরে স্বস্তি এবং আরাম অনুভব করে। ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড এর উপস্থিতির জন্য ধন্যবাদ যা আর্থাইটিস এর কারণে সৃষ্ট কঠোরতা এবং ব্যথা কমাতে সাহায্য করে।

 

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে

সরিষার তেলের গঠন আমাদের শরীরের প্রয়োজনীয়তার উপর ভিত্তি করে। সরিষার তেলে সাচুরেটেড ফ্যাট উচ্চ মনোসাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড রয়েছে। ওমেগা 3 এবং ওমেগা ৬ ফ্যাটি অ্যাসিড এবং ভিটামিন ই  সর্বোত্তম প্রয়োজনীয় পুষ্টির মান প্রদান করে যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে।

 

ওজন কমাতে সাহায্য করে

নিয়াসিন এবং রিবোফ্লাভিন সহ নির্দিষ্ট বি কমপ্লেক্স ভিটামিনের কারণে সরিষার তেল বিপাক বৃদ্ধি করে। ওমেগা 3 এবং ওমেগা ৬ ফ্যাটি অ্যাসিড সমৃদ্ধ এই তেল চর্বি ভেঙে দেয়। অতএব একটি ভালো একটি স্বাস্থ্যকর ওজন নিশ্চিত করে। এজন্য ওজন কমাতে হলে অবশ্যই সরিষার তেল ব্যবহার করতে হবে।

 

প্রাকৃতিক সানস্ক্রিন

সরিষার তেল ভিটামিন ই দিয়ে পরিপূর্ণ যা ত্বকের একটি প্রাকৃতিক সুরক্ষাকারী। ভিটামিন ই বার্ধক্যের সাথে সাহায্য করে যা সূর্যের অতিবেগুনী রশ্মিকে বাধা দেয় এবং ত্বককে রক্ষা করে।এজন্য সরিষার তেল কে প্রাকৃতিক সানস্ক্রিন বলা হয়।


ত্বকের যত্নে

ত্বকের যে কোন সমস্যা যেমন ফুসকুড়ি, চুলকানি এবং সংক্রমনের চিকিৎসার জন্য সরিষার তেল ব্যবহার করা যেতে পারে।সরিষার তেল বয়সের ছাপ দূর করে এবং ত্বকের উজ্জলতা বৃদ্ধিতে কার্যকর ভূমিকা পালন করে।

 

চুলের যত্নেসরিষার তেল

চুলে সরিষার তেলের অপকারিতা অনেক। বিভিন্ন উপায়ে চুল এবং মাথার ত্বকের জন্য উপকারী বলে জানা গেছে। এটি চুল পড়া দূর করে, খুশকি দূর করে ও অকালে চুল পাকা রোধ করে। নিয়মিত গরম তেল ব্যবহারে চুল মজবুত এবং চকচকে হয়।

 

সরিষার তেলের অপকারিতা

সরিষার তেলের যেরকম উপকারিতা রয়েছে। তেমনি সবকিছুর মতো সরিষার তেল ব্যবহারের অপকারিতা রয়েছে। সরিষার তেলের অপকারিতা দেয়া হলো

 

এরুকিক অ্যাসিড

সরিষার তেলের নেতিবাচক গুণাবলীর এটি  এক নম্বরে। অনেক লোক এটি বিশ্বাস করা যে এটি হার্ট, হজম, শ্বাসযন্ত্র এবং রক্তের সমস্যা গুলোর মতো গুরুতর সমস্যা তৈরি করতে পারে।

 

ক্ষুদ্র এলার্জি প্রতিক্রিয়া

সরিষার তেল ব্যবহারে অনেকেরই এলার্জি সমস্যা দেখা দেয়। অতিরিক্ত তেল ব্যবহারে ক্ষুদ্র এলার্জির প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হতে পারে। এজন্য সরিষার তেল ব্যবহারে একটু সতর্ক থাকতে হবে।

 

ড্রপসি হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়

সরিষার তেল অতিরিক্ত ব্যবহারে ড্রপসি হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়। এর ফলে অস্বাভাবিক ফোলা ভাব এবং তরল ধারণ হয়।

 

জ্বালা সৃষ্টি করতে পারে

সরিষার অ্যালাইল আইসোথিওসায়ানেট নামক ক্ষতিকারক রাসায়নিক থাকে যদিও অল্প পরিমাণে। যদি সরিষার তেল অতিরিক্ত ব্যবহার করা হয় তাহলে এটি জ্বালা সৃষ্টি করতে পারে।

 

গর্ভাবস্থাকে প্রভাবিত করে

গর্ভবতী মহিলাদের সরিষার তেল খাওয়া এড়িয়ে চলা উচিত। কারণ এতে কয়েকটি রাসায়নিক যৌগ রয়েছে যা ব্রণের জন্য ক্ষতিকারক। গবেষকদের মতে সরিষার তেল গর্ভপাত ঘটাতে পারে।

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *