চুল সোজা করার উপায়
| |

ঘরে বসে প্রাকৃতিক ভাবে চুল সোজা করার উপায়

সোজা চুল কে না পছন্দ করে। বিশেষ করে যাদের কোঁকড়া চুল তাদের তো মনে একটাই আফসোস ইশ আমার চুল যদি সোজা হতো। অনেক মহিলা চুল সোজা করতে পার্লারে দৌড়ায়। পার্লারে গিয়ে চুল সোজা করার জন্য বারবার তাপ প্রয়োগ করে অথবা আয়রন করে। এবং বিভিন্ন রাসায়নিক কেমিক্যাল যুক্ত পণ্য দিয়ে চুল সোজা করে। এতে চুল ভেঙে…

সোজা চুল কে না পছন্দ করে। বিশেষ করে যাদের কোঁকড়া চুল তাদের তো মনে একটাই আফসোস ইশ আমার চুল যদি সোজা হতো। অনেক মহিলা চুল সোজা করতে পার্লারে দৌড়ায়। পার্লারে গিয়ে চুল সোজা করার জন্য বারবার তাপ প্রয়োগ করে অথবা আয়রন করে। এবং বিভিন্ন রাসায়নিক কেমিক্যাল যুক্ত পণ্য দিয়ে চুল সোজা করে। এতে চুল ভেঙে যায়, এবং অনেক বেশি চুল পড়ে যায়। আর নয় পার্লার এখন ঘরে বসে প্রাকৃতিক উপায়ে চুল সোজা করার উপায় রয়েছে। কি বিশ্বাস হচ্ছে না কি মনে হচ্ছে? পার্লারে না যেয়ে বাড়িতে কিভাবে চুল সোজা করা যায়? বিশ্বাস করুন আপনি বাড়িতে বসেই প্রাকৃতিকভাবে চুল সোজা করতে পারবেন। এতে চুল ভেঙে যাওয়া অথবা চুল পড়ার সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে।

পার্লারে গিয়ে গাদা গাদা টাকা খরচ না করে বাড়িতে বসেই অল্প খরচে স্বাস্থ্যজ্জ্বল সোজা চুল পাওয়া সম্ভব।সোজা চুল সব ধরনের চুলের মধ্যে সবচেয়ে বহুমুখী। বেশিরভাগ মানুষই কেন সোজা চুল পছন্দ করে কারণ সোজা চুল স্পর্শ করলে দুর্দান্ত অনুভব হয় যা উল্লেখ করার মতো নয়। সব সময় চকচকে এবং দেখায় মসৃণ দেখায়। আপনি সোজা চুল যেমন আছে তেমনি রেখে দিতে পারেন এবং বিভিন্ন স্টাইলে চুল বাধা যায়।বব থেকে শুরু করে লেয়ারিং বিভিন্ন স্টাইলে চুল কাটা যায় এজন্য সোজা চুল সবাই পছন্দ করেন। আপনার চুল যদি স্বাভাবিকভাবে সোজা হয় তাহলে অবশ্যই সেই চুলের বেশি বেশি যত্ন নিন।

পার্লারে চুল সোজা করার কিছু সাধারণ সমস্যা রয়েছে অতিরিক্ত তাপ এবং বিভিন্ন ধরনের কেমিক্যাল দিয়ে চুল সোজা করলে যা হতে পারেঃ

  1. চুল অতিরিক্ত শুষ্ক হয়ে যায় কারণ তাপ আপনার চুলকে আদ্রতা শূন্য করে তোলে।
  2. এটি সময়ের সাথে সাথে আপনার চুলকে অতিরিক্ত দুর্বল করে এতে চুল পড়া এবং চুল পাতলা হতে পারে
  3. যারা প্রতিদিন স্ট্রেটনার ব্যবহার করেন। প্রতিদিন চুল সোজা করলে উজ্জলতা হারিয়ে যায় প্রাকৃতিক চুল তার প্রাকৃতিক উজ্জলতা এবং গভীর রং হারাতে পারে।

 

ঘরে বসে সহজেই চুল কালার করার উপায় জানতে ক্লিক করে পড়ে নিন।

 

প্রাকৃতিক ভাবে চুল সোজা করার উপায়

ঘরে বসে বা বাড়িতে বসে প্রাকৃতিক উপাদান দিয়ে খুব সহজেই চুল সোজা করা যায়। প্রাকৃতিকভাবে চুল সোজা করলে চটজলদি চুল একেবারে সোজা হবে না।চুল সোজা হতে একটু বেশি সময় লাগে। প্রাকৃতিকভাবে চুল সোজা করলে চুল অনেক স্বাস্থ্যকর মজবুত চকচকে এবং মসৃণ হয়। আপনি ঘরে বসে চুল সোজা করতে চাইলে অবশ্যই আমাদের এই টিপসগুলো ফলো করতে পারেন।


মুলতানি মাটি

মুলতানি মাটি চুলের জন্য খুবই দুর্দান্ত। কিন্তু খুব কম লোকই জানে। এটি কেবল ত্বকের জন্যই নয় এটি চুলের যত্নে ও খুব উপকারী একটি উপাদান মুলতানি মাটি। মুলতানি মাটি চুলকে অনেক উজ্জ্বল, মসৃণ এবং সোজা করতে সাহায্য করে। তেমনি ডিম ও চুলের যত্নে খুবই উপকারী।ডিম চুলের প্রোটিন প্যাক হিসেবে ব্যবহার করা হয়।ডিম চুলকে চকচকে করতে সাহায্য করে। 

যা প্রয়োজনঃ

  • মুলতানি মাটি
  • ২টি ডিম 

যা করতে হবেঃ

  • একটি বাটিতে মুলতানি মাটির গুঁড়া নিন
  • ডিম এবং পানি দিয়ে ভালোভাবে পেস্ট করে নিতে হবে
  • তারপর আপনার চুলের গোড়া থেকে আগা পর্যন্ত মুলতানি মাটি লাগাতে হবে এবং একটি শাওয়ার ক্যাপ পড়ে নিতে হবে
  • ২৫মিনিট পর চুল অনেকবার ভালোভাবে আঁচড়াতে হবে
  • দেড় ঘণ্টা পর শ্যাম্পু করে নিবেনতারপর আপনি চুল দেখে নিজেই অবাক হবেন যে চুল কতটা সোজা এবং উজ্জ্বল হয়েছে
  • এটি সপ্তাহে ২ বার ব্যবহার করতে পারেন



নারিকেল দুধ ও লেবুর রস

চুল সোজা করতে নারিকেল দুধ এবং লেবুর রস দুর্দান্ত এজেন্ট হিসেবে কাজ করে। চুল প্রাকৃতিক ভাবে সোজা করতে চাইলে অবশ্যই এই দুটি উপাদান ব্যবহার করে দেখবেন।এই হেয়ার মাস্ক বা হেয়ার প্যাক লাগালে চুলের ড্যামেজ রিপেয়ার করে,চুলের আগা ফাটা রোধ করে চুলকে সোজা নরম করে তোলে এবং স্বাস্থ্যউজ্জ্বল করে তুলতে সাহায্য করে।

যা প্রয়োজনঃ

  • প্রয়োজন মত নারিকেলের দুধ
  • ২টেবিল চামচ লেবুর রস

যা করতে হবেঃ

  • নারিকেলের দুধ এবং লেবুর রস একসাথে পেস্ট করুন
  • এই মিশ্রণটি সারারাত রেখে দিতে হবে
  • সকালে আপনার চুলের মধ্যে ভালোভাবে লাগান
  • ৩০ মিনিট রেখে দিতে হবে তারপর  শ্যাম্পু করে ফেলবেন
  • সপ্তাহে ২ বার ব্যবহার করতে পারেন। আপনি একবার ব্যবহারের পরে দেখবেন আপনার চুল কতটা সিল্কি মসৃণ এবংসোজা হয়েছে

 

দুধ স্প্রে

দুধে থাকা প্রোটিন আপনার চুলের গোড়া মজবুত করতে সাহায্য করে। চুলের রুক্ষতা দূর করে।  প্রাকৃতিকভাবে চুল কে  স্বাস্থ্যোজ্জ্বল, মসৃণ এবং চকচকে করে তোলার পাশাপাশি প্রাকৃতিকভাবে চুল সোজা করতে সাহায্য করে।

যা প্রয়োজনঃ

  • ১/৪ কাপ দুধ
  • একটি স্প্রে বোতল

যা করতে হবেঃ

  •  একটি স্প্রে বোতলে দুধ ঢেলে নিন
  • আপনার চুলে ভালোভাবে দুধ স্প্রে করুন
  • তারপর চুল ভালোভাবে আঁচড়িয়ে নিতে হবে এবং ৫০ মিনিট পর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন
  • ভালো ফলাফল পেতে হলে সপ্তাহে দুই থেকে তিনবার ব্যবহার করতে পারেন

 

চালের আটা ও ডিম

চালের আটা ও ডিম চুল সোজা করতে দারুণ ভাবে কাজ করে। এই হেয়ার প্যাকটি ব্যবহার করলে চুল মসৃণ এবং মাথার ত্বক খুবই পরিষ্কার হয়। এটি আপনার চুলে পুষ্টি যোগায়, ময়লা দূর করে চুলকে মেরামত করে। চুল স্বাস্থ্যোজ্জ্বল ও প্রাকৃতিক ভাবে চুল সোজা করতে সাহায্য করে।

যা প্রয়োজনঃ

  • চুলের ঘনত্ব ও লম্বা অনুযায়ী পরিমাণমতো চালের আটা
  • ২ টি ডিমের সাদা অংশ
  • ১/৪ কাপ দুধ অথবা পানি

যা করতে হবেঃ

  • চালের আটা ও ডিমের সাদা অংশ নিয়ে তাতে দুধ অথবা পানি মিশিয়ে মিশিয়ে পেস্ট করে নিতে হবে
  • মাথায় এবং চুলে এই হেয়ার প্যাকটি ভালোভাবে লাগাতে হবে
  • শাওয়ার ক্যাপ পড়ে নিতে হবে না হলে এই প্যাকটি তাড়াতাড়ি শুকিয়ে যাবে
  • ৪৫ মিনিট পর শ্যাম্পু করতে হবে
  • সপ্তাহে ১ থেকে ২ বার ব্যবহার করতে পারেন

 

অ্যালোভেরা জেল

অ্যালোভেরা জেল কে প্রাকৃতিক কন্ডিশনার বলা হয় কারণ অ্যালোভেরাতে এনজাইম রয়েছে যা বৃদ্ধির প্রচার করার সময় চুলকে সোজা, মসৃণ এবং নরম রাখতে সাহায্য করে। আলোভেরা আপনার চুলের ভিতরে প্রবেশ করে চুলকে হাইড্রেট এবংকোঁকড়া চুলকে সোজা করতে সাহায্য করে।

যা প্রয়োজনঃ

  • পরিমাণমত অ্যালোভেরা জেল
  • হালকা কুসুম ১/৪ কাপ নারকেল তেল অথবা জলপাই তেল

যা করতে হবেঃ

  • দুইটি উপাদান ভালোভাবে মিশিয়ে নিতে হবে
  • এই মিশ্রণ দিয়ে চুলের গোড়া থেকে আগা পর্যন্ত লাগাতে হবে
  • এক ঘন্টা পর মাইল্ড শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুতে হবে তারপর ফলাফল নিজেই লক্ষ্য করবেন
  •  ভালো ফলাফল পেতে সপ্তাহে একবার লাগাতে পারেন

 

পাঁকাকলা পেঁপে ও মধু

পাকা কলা পেঁপে ও মধু চুলের যত্নে জাদুকরী উপাদান। এই তিনটি উপাদান চুলের সকল সমস্যা দূর করে চুলকে পুষ্টিকর করে তোলে। এগুলো একসাথে প্রাকৃতিক কন্ডিশনার হিসেবে কাজ করে যা চুলকে সোজা এবং মসৃণ করতে সাহায্য করে। এই হেয়ার প্যাকটি চুলের উন্নতি জোগাতে একসাথে কাজ করে এবং চুল চকচকে এবং স্বাস্থ্যকর দেখায়। 

যা প্রয়োজনঃ

  • একটি পাকা কলা
  • পাকা পেঁপে বড় এক টুকরা
  • ২ চামচ মধু

যা করতে হবেঃ

  • তিনটি উপাদান একত্রে হাতে পেস্ট না হলে ব্লেন্ডারে পেস্ট করতে পারেন
  • এটি আগা থেকে গোড়া পর্যন্ত ভাল ভাবে লাগাতে হবে
  • ৪৫ মিনিট পর্যন্ত চুল সোজা করে ছেড়ে রাখতে হবে তারপর শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে
  • ভালো ফলাফল পেতে সপ্তাহে দুইবার করতে পারেন ব্যবহার করতে পারেন



ডিম ,অলিভ অয়েল ও টক দই

ডিমে প্রচুর পরিমান প্রোটিন থাকে যা  আপনার চুলকে পুষ্ট ও মসৃণ করতে সাহায্য করে। অলিভ অয়েল একটি চমৎকার প্রাকৃতিক কন্ডিশনার হিসেবে কাজ করে যা চুলকে সোজা করেএবং শুষ্কতা থেকে রক্ষা করে। টক দই চুলকে গভীরভাবে নারিশিং করে তোলে। এই স্ট্রেটেনিং হেয়ার প্যাকটি  একটি গভীর কন্ডিশনিং ট্রিটমেন্ট হিসেবে দ্বিগুণ হয়ে যায়। যা আপনার চুলকে মজবুত করে এবং সোজা করে তোলে।

যা প্রয়োজনঃ

  • ২ টি ডিম
  • ৩ টেবিল চামচ অলিভ অয়েল
  • ৫ টেবিল চামচ টক দই

যা করতে হবেঃ

  • এই উপাদানগুলো ভালোভাবে মিশিয়ে নিন না হলে ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে নিন
  • মিশ্রণটি মাথায় ও চুলে ভালোভাবে  লাগিয়ে নিন
  • ১ ঘন্টা রেখে দিন তারপর সালফেট মুক্ত বা মাইল্ড শ্যাম্পু দিয়ে আপনার চুল ধুয়ে ফেলুন
  • সপ্তাহে ১ থেকে ২ বার ব্যবহার করতে পারেন

 

আপেল সিডার ভিনেগার

আপেল সিডার ভিনেগার চুল থেকে অতিরিক্ত তেল ময়লা এবং জমাট থেকে মুক্তি পেতে দুর্দান্ত কাজ করে। এটি আপনার কিউটিকল থেকে যে কোন ময়লা অপসারণ করতে সাহায্য করে এবং চুল মসৃণ করে। এতে চুল কোঁকড়া থেকে মুক্তি পায় ও স্ট্রেট হয় এবং চকচকে করে তোলে।

যা প্রয়োজনঃ

  • ২ টেবিল চামচ আপেল সিডার ভিনেগার
  • ১ কাপ পানি

যা করতে হবেঃ

  • আপেল সিডার ভিনেগার পানি দিয়ে পাতলা করে একটি জগে রেখে দিন
  • শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে নিন
  • তারপর কন্ডিশনার হিসেবে আপেল সিডার মিশ্রিত পানি দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন।
  • এরপর আর চুল ধুবেন না
  • সপ্তাহে ২ বার করতে পারেন

 

হট অয়েল বা গরম তেল মাসাজ

হট অয়েল বা গরম তেল মাসাজ আমাদের মাথার ত্বকের জন্য কতটা উপকারী তা আমরা সবাই জানি। তেমনি ভাবে চুল  স্ট্রেট বা সোজা করতে খুবই ভালো কাজ করে হট অয়েল ট্রিটমেন্ট কারণ হালকা কুসুম গরম এই তেল মাথার ভিতরে প্রবেশ করে চুল পড়া থেকে শুরু করে চুলের বিভিন্ন রকমের সমস্যা দূর করে। চুলকে ড্যামেজ এর হাত থেকে রক্ষা করে চুল মসৃণ এবং সোজা করে করতে সাহায্য করে।

যা প্রয়োজনঃ

  • নারকেল তেল
  • অলিভ অয়েল
  • ক্যাস্টর অয়েল
  • তিল বা বাদাম তেল নিতে হবে পরিমাণমতো

যা করতে হবেঃ

  • সব তেল একসাথে মিশিয়ে হালকা গরম করে মাথায় এবং চুলে ভালো ভাবে লাগাতে হবে
  • ২০ থেকে ২৫ মিনিট পর্যন্ত মাথা ম্যাসাজ করতে হবে
  • চুল আঁচড়িয়ে হট শাওয়ার ক্যাপ বা গরম তোয়ালে দিয়ে ৩০ মিনিট মাথা ঢেকে রাখতে হবে
  • তারপর শ্যাম্পু করে ফেলুন এটি সপ্তাহে 2 বার ব্যবহার করতে পারেন

 

হেয়ার সিরাম

যাদের হেয়ার প্যাক লাগানোর সময় নেই বা অতিরিক্ত কাজের চাপ তারা বাহিরে বের হবার আগে হেয়ার সিরাম লাগিয়ে নিতে পারেন। প্রাকৃতিকভাবে চুল সোজা করতে হেয়ার সিরাম খুবই কার্যকর। হেয়ার সিরাম চুলকে হাইড্রেট, পুষ্ট  এবং মশ্চারাইজড করতে সাহায্য করে। হেয়ার সিরাম চুলকে চকচকে বা  উজ্জ্বল এবং স্ট্রেট করে তোলে।

যা প্রয়োজনঃ

  • হেয়ার সিরাম

যা করতে হবেঃ

  • আপনি ভেজা চুল বা শুষ্ক চুলের জন্য হেয়ার সিরাম বেছে নিতে পারেন
  • চুল ভালোভাবে শ্যাম্পু করে নিতে হবে এবং ভেজা চুলের সিরাম হলে ভেজা চুলে লাগাতে হবে এবং শুষ্ক চুলের সিরাম শুকনো চুলে লাগাতে হবে
  • তারপর চুল ভালভাবে আঁচড়িয়ে নিতে  হবে। তবে হেয়ার সিরাম এর  ক্রিম আছে চাইলে সেটিও ব্যবহার করতে পারেন
  • হেয়ার সিরাম বাহিরে যাওয়ার সময় বা  অনুষ্ঠানে যাবার আগে  লাগিয়ে নিতে পারেন



রাতে চুলের ব্যান্ড ব্যবহার করুন

রাতে নিয়মিত চুলের রাবার ব্যান্ড দিয়ে বেঁধেরাখলে চুল প্রাকৃতিক ভাবে সোজা হতে সাহায্য করে এবং চুল মজবুত হয় ও রুক্ষতা থেকে রক্ষা পায়। এজন্য অবশ্যই রাতে শোবার আগে চুলে নিয়মিত রাবার ব্যান্ড ব্যবহার করবেন।

যা প্রয়োজনঃ

  • হেয়ার ব্যান্ড বা রাবার ব্যান্ড

যা করতে হবেঃ

  • প্রথমে চুলকে এক ভাগ অথবা দুই ভাগে ভাগ করুন
  • চুল আঁচড়িয়ে হেয়ার ব্যান্ড বা ইলাস্টিক রাবার দিয়ে চুল বেঁধে ফেলুন
  • তারপর এক ইঞ্চি পরপর হেয়ার ব্যান্ড দিয়ে চুল আগা পর্যন্ত এভাবেই বেঁধে ফেলুন
  • এভাবে ঘুমাতে যান এবং সকালে উঠে চুল ছেড়ে দিন
  • নিয়মিত ব্যবহার করলে এক সপ্তাহের মধ্যে আপনি নিজেই পরিবর্তন লক্ষ্য করবেন

 

আমাদের এই টিপসগুলো যদি আপনাদের ভালো লাগে এবং অন্য টিপস জানতে তাহলে অবশ্যই নিচে কমেন্ট বক্সে কমেন্ট এর মাধ্যমে আমাদের কে জানান ধন্যবাদ।

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *