গরমকালে ত্বকের যত্ন

গরমকালে ত্বকের যত্ন নেওয়ার ১০ টি টিপস

আয়নাতে ঐ মুখ দেখবে যখন মুখের কালো দাগ পড়বে চোখে তাইতো আমাদের ত্বকের যত্ন নিতেই হবে। শুরুটাই বেশ ফানি হয়ে গেল তাই না? বর্তমান যুগে রূপচর্চা বা সৌন্দর্য চর্চা কোন বিলাসিতা নয় বরং সব বয়সী নারী-পুরুষসবার সৌন্দর্য ধরে রাখার জন্য রূপচর্চা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। গরমকালে ত্বকের সৌন্দর্য বজায় রাখার জন্য অনেক কাঠ খড় পোড়াতে হয়। গরম…

আয়নাতে ঐ মুখ দেখবে যখন মুখের কালো দাগ পড়বে চোখে তাইতো আমাদের ত্বকের যত্ন নিতেই হবে। শুরুটাই বেশ ফানি হয়ে গেল তাই না?

বর্তমান যুগে রূপচর্চা বা সৌন্দর্য চর্চা কোন বিলাসিতা নয় বরং সব বয়সী নারী-পুরুষসবার সৌন্দর্য ধরে রাখার জন্য রূপচর্চা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। গরমকালে ত্বকের সৌন্দর্য বজায় রাখার জন্য অনেক কাঠ খড় পোড়াতে হয়। গরম পড়লে ত্বকের অবস্থা দফারফা হয়ে যায়। গরমের দিনে ত্বকের উপর কালচে দাগ পড়ে মুখের উজ্জ্বলতা কমে যায়। গরমকাল আসা মানেই ত্বকের বিভিন্ন সমস্যা আগমনের পূর্বাভাস। এই সময়ে রোদ, ঘাম এবং বাইরের ধুলায় ত্বকে দেখা দেয় ব্রণ, র‌্যাশ, ঘামাচি সহ বিভিন্ন সমস্যা। তাই গরমে ত্বকের সৌন্দর্য ধরে রাখা বেশ কঠিন হয়ে পড়ে। তাই অন্যান্য ঋতুর সে গ্রীষ্মকালে ত্বকের একটু এক্সট্রা যত্ন নেওয়া আবশ্যক হয়ে পড়ে।

তবে আজকে আমাদের এই আলোচনার পর আপনিও এক্সপার্ট হয়ে যাবেন গরমকালে কিভাবে ত্বকের যত্ন নিতে হয়। চলুন তবে এক নজরে দেখে নেওয়া যাক কি আছে আজকের আয়োজনে।

ব্রণ দূর করার উপায় কিছু ঘরোয়া উপায় জানতে ক্লিক করুন এখানে

 

গরমের মৌসুমে যেভাবে আপনার ত্বকের যত্ন নিতে পারেনঃ

 গরমের মরসুমে আপনি অনেক সমস্যার মুখোমুখি হতে পারেন। এই জন্য এই মৌসুমে আপনার ত্বকের যত্ন নেয়া দরকার। সেজন্য আপনার ত্বকের যত্নের পণ্যগুলো এবং রুটিন পরিবর্তন করতে হবে। এই গরমে আপনার ত্বকের যত্ন নিতে আপনি এটি করতে পারেন।

১. রোদ এড়িয়ে চলতে হবেঃ

প্রথমেেই আমাদের যেটা করা উচিত তা হল রোদ এড়িয়ে চলতে হবে। সূর্যের অতিবেগুনি রশ্মি ত্বকের উপর অনেক ক্ষতিকর প্রভাব ফেলে। যার ফলে ত্বক রোদে পুড়ে যে কালচে দাগ ও ছোপ ছোপ হয়ে যায়। গরমের দিনে তাপমাত্রা অনেক বেশি থাকে এজন্য রোদে বের হওয়ার সময় অবশ্যই ছাতা ব্যবহার করলে ত্বক রোদের হাত থেকে রক্ষা পাবে। এর ফলে সানবার্ন ও সানট্যান কম হবে এবং সূর্যের ক্ষতিকারক রশ্মি ত্বকের কোন ক্ষতি করতে পারবেনা।

২. আদ্রতা বজায় রাখাঃ

গরমের দিনে যেটা বেশি জরুরি তা হলো শরীরের ত্বককে আদ্র রাখা। কারণ গ্রীষ্মকালে তাপমাত্রা এতই বেশি থাকে যে শরীর থেকে অতিরিক্ত ঘাম বের হয়ে ত্বককে ডিহাইড্রেট করে তোলে। এর ফলে ত্বকের আদ্রর্তা হারিয়ে যায় এবং ত্বকের অনেক ক্ষতি হয়। এজন্য নিজেকে হাইড্রেট রাখতে অবশ্যই প্রচুর পরিমাণে পানি পান করতে হবে। আপনি যেখানেই যান না কেন অবশ্যই পানির বোতল সাথে নিবেন এসব দিনে কমপক্ষে দুই থেকে তিনবার গোসল করতে পারেন। নিজেকে সতেজ রাখার জন্য প্রয়োজন বোধে আপনি চাইলে বেশি বেশি লেবু পানি পান করতে পারেন।

৩. ময়েশ্চারাইজার আপডেট করাঃ

আপনি যদি ভাবেন গরমের দিনে আপনার ত্বকের ময়েশ্চারাইজার এর প্রয়োজন নেই তাহলে আপনি খুবই ভুল করবেন। কিন্তু আপনি শীতের সময় যে মশ্চারাইজার ব্যবহার করেন তা হলো অয়েল বেসড ময়েশ্চারাইজার। এটি গরমের দিনে ব্যবহার করলে ত্বকের ক্ষতি হয় এজন্য অবশ্যই আপনার মশ্চারাইজার আপডেট করতে হবে। এবং ওয়াটার বেসড ময়েশ্চারাইজার বাছাই করতে হবে। এবং এসপিএফ দেখে নিতে হবে, যা আপনার ত্বকের আদ্রতা লক করতে সহায়তা করে।

৪. টোনার ব্যবহার করাঃ

গ্রীষ্মের মাসগুলোতে ত্বকে টোনার ব্যবহার করা আবশ্যক। একটি ভালো টোনার আপনার ত্বককে তেলমুক্ত পরিষ্কার রাখে। একটি ভালো টোনার ব্যবহারে আপনার লোমকূপের খোলা ছিদ্র বন্ধ করতে সহায়তা করে। খোলা ছিদ্রগুলোতে প্রচুর পরিমাণে তেল ও ময়লা জমা হয়ে ব্রণের সৃষ্টি হয়। টোনার ব্যবহারে এটি এড়িয়ে যাওয়া যায়। আর অবশ্যই আমরা প্রাকৃতিক উপাদানের টোনার ব্যবহার করব। একটি শসা বা অ্যালোভেরা ভিত্তিক টোনার ব্যবহার করা উচিত। প্রাকৃতিক উপাদানের মধ্যে গোলাপজল ভালো টোনার হিসেবে কাজ করে। এবং গরমে ত্বকে গোলাপ জল ব্যবহার করলে ত্বক পরিষ্কার হয় এবং ঠান্ডা রাখতেও সহায়তা করে।

৫. মুখে পানির ব্যবহারঃ

গরমের দিনে আপনি দুটি জিনিস থেকে কখনোই পালাতে পারবেন না। সেটি হলো ঘাম এবং তৈলাক্ত ত্বক। গরমে অতিরিক্ত তাপের কারণে ত্বক থেকে তেলের সৃষ্টি হয় ও ঘামের জন্য এটি আরো অস্বস্তিকর করে তোলে যাতে ব্রণের সৃষ্টি করে এবং উজ্জলতা নষ্ট হয়ে যায়। চেহারার উজ্জ্বলতা বজায় রাখতে এবং গরমে তৈলাক্ত ত্বকের যত্ন নিতে, দিনে অন্তত তিন থেকে চার বার মুখ ধুয়ে নিতে পারেন। প্রয়োজনে প্রাকৃতিক উপাদানের কোন ফেসওয়াশ দিয়ে মুখ ধুয়ে নিবেন এতে আপনার ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পাবে।

ত্বক উজ্জ্বল করার উপায় হিসাবে ১০টি কার্যকারী টিপস জানতে ক্লিক করুন এখানে

৬. সানস্ক্রীমের ব্যবহারঃ

গরমের দিনে সানস্ক্রিম আপনার সেরা বন্ধু হওয়া উচিত। সূর্যের রশ্মি আপনার ত্বকের যথেষ্ট পরিমান ক্ষতি করতে পারে এবং তা দীর্ঘমেয়াদী ক্ষতির কারণ হতে পারে। আপনি এমন একটি সানস্ক্রিম নির্বাচন করুন যার এসপিএফ (SPF 30-50)। এবং UVA এবং UVB রশ্মি কভার করে। আপনি বাইরে বের হওয়ার আগে অবশ্যই সানস্ক্রিম ব্যবহার করবেন। সানস্ক্রিম ব্যবহারে আপনার ত্বক রোদেপোড়া থেকে রক্ষা পায়। দিনে অন্তত দুই থেকে তিনবার সানস্ক্রিম ব্যবহার করবেন।

৭. আপনার ত্বক এক্সফোলিয়েট করুনঃ

গরমের দিনে তৈলাক্ত ত্বকের পাশাপাশি আপনার ত্বক শুষ্ক ও নিস্তেজ হয়ে যেতে পারে। এক্সফলিয়েশন উজ্জ্বল ও মসৃ্ন ত্বকের মূল চাবিকাঠি। এটি ত্বকের মৃত কোষ গুলি অপসারণ করে। এটি কেবল সমস্ত শুকনা এবং মৃত কোষ সরিয়ে ফেলবে না এটি আপনার ত্বকেকে চাঙ্গা করবে। এবং ত্বককে স্বাস্থ্যকর রাখবে। মনে রাখবেন এক্সফলিয়েশন কেবল আপনার মুখের জন্য নয় এটি আপনার পুরো শরীরের জন্য প্রয়োজন। প্রাকৃতিক উপাদান দিয়ে ত্বককে এক্সফলিয়েট করা উচিত। কফি এবং লবন একসাথে দিয়ে স্ক্রাবার হিসেবে ব্যবহার করা যায়। তবে অবশ্যই মনে রাখবেন অতিরিক্ত এক্সফলিয়েট করবেন না এতে ত্বকের ক্ষতি হতে পারে। সপ্তাহে দুই থেকে তিনবার করতে পারবেন যা ত্বককে স্নিগ্ধ ও সতেজ রাখবে।

৮. বরফের ব্যবহারঃ

অতিরিক্ত গরমে ত্বক রোদে পুড়ে যায় ও ত্বকে জ্বালাপোড়া শুরু করে এমন সময় বরফ এর ব্যবহার অত্যাবশ্যক জরুরী হয়ে পড়েI আপনি যদি বাহিরে যান তাহলে যাওয়ার আগে অবশ্যই বরফের কয়েকটি কিউব আপনার ত্বকে ঘষে নিতে পারেন এবং বাহিরে থেকে আসার পরেও আপনি এটি ব্যবহার করতে পারেন।তবে অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে যে বাহিরে থেকে আসার অন্তত 30 থেকে 40 মিনিট পরে ব্যবহার করতে হবে তবে শুধু বরফ ব্যবহার না করে অ্যালোভেরা জেল বরফ করে রেখে দিতে পারেন অথবা গ্রিন টি বরফ করে নিতে পারেন।এগুলো আপনি রাতে ঘুমোতে যাওয়ার আগে ও ব্যবহার করতে পারবেন এতে আপনার ত্বকের উজ্জলতা অনেক বৃদ্ধি পাবে এবং রোদে পোড়ার হাত থেকে রক্ষা পাবে।

৯. পর্যাপ্ত ব্যায়াম করুন

গ্রীষ্মের তাপ, ঘাম এবং আদ্রতা আপনাকে একদম নির্জীব করে দেয় তবে হাল ছেড়ে দেবেন না। গ্রীষ্মে স্বাস্থ্যকর ত্বক বজায় রাখার জন্য অনুশীলন অনেক গুরুত্বপূর্ণ।শারীরিক ব্যায়াম আপনার রক্ত প্রবাহ কে উন্নত করে অর্থাৎ ত্বকের কোষগুলির মধ্যে অক্সিজেন প্রবেশ করায় যা আপনার শরীরের টিস্যুর ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করে। যেমন রোদে পোড়া বা ব্রন সহজে নিরাময় করে। আপনি ইয়োগা করতে পারেন এবং আপনার ওয়ার্কআউট এ কিছু মজার যুক্ত করতে চাইলে জুম্বা ডান্স করতে পারেন।তারপর সাইকেল চালানো, ভলিবল খেলতে পারবেন। যেকোনো ধরনের ব্যায়াম আপনার স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী।

১০. আপনার ত্বকের যত্নে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট গুলি অন্তর্ভুক্ত করুন

গ্রীষ্মের সময় একটি ভালো ব্রান্ডের সিরাম ব্যবহার করা উচিত। আপনার ত্বককে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যুক্ত সিরাম শুধু ডিহাইড্রেড থেকে রক্ষা করে না বরং এর পাশাপাশি আপনার ত্বককে পরিবেশগত ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করতে পারে। উদাহরণস্বরূপ আপনার ত্বককে কুঁচকে যাওয়া থেকে রক্ষা করে এবং কোলাজেনের বিকাশ ঘটায়। ত্বকের ক্ষতি রোধে ক্ষতিকারক ফ্রি রেডিকেল গুলো ছড়িয়ে দেবে আপনার শরীরে শুধু অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট প্রয়োগ করলে হবেনা এর পাশাপাশি স্বাস্থ্যকর খাওয়া আবশ্যক। এ সময় প্রচুর পরিমাণে ফলমূল ও শাকসবজি খাওয়া উচিত। এগুলোতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন  ও অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট রয়েছে যা কোলাজেনের উৎপাদন বাড়ায়,প্রদাহ হ্রাস করে এবং আপনার  ত্বককে সূর্যের ক্ষতিকারক প্রভাব থেকে রক্ষা করে।

পরিশেষে আমরা বলতে পারি যে, ত্বকের যত্ন আমরা সবসময় ঘাড় পর্যন্ত করে থাকি। আমাদের বেশিরভাগ সময়ই পায়ের  যত্ন নেওয়ার কথা মনেই থাকেনা। পায়ের যত্ন নিয়ে পরবর্তীতে আশা করি বিস্তারিত লিখবো। শরীরের প্রতিটি অঙ্গের যত্ন নেওয়া সমানভাবে জরুরী বলে আমি মনে করি। তাই নিজের প্রতি যত্নশীল হোন। সুন্দর ও স্বাস্থকর জীবন গড়ে তুলুন।

Similar Posts

2 Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *